স্বপ্ন পূরণের লড়াইয়ে অবিচল থাকার উপায়

Spread the love

জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে। এই স্বপ্নগুলো পূরণ করতে হলে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়। কখনো কখনো নিরন্তর চেষ্টার পরও স্বপ্ন পূরণ হয় না। জীবনে অনেক সময় ব্যর্থতা আসবে। ব্যর্থতায় হতাশ হয়ে পড়লে চলবে না। ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার চেষ্টা করতে হবে। সত্যিকারের লড়াকু তারাই যারা সহস্র বিপদ-আপদ বালা-মুসিবত ডিঙ্গীয়ে জীবনের কাছে হার মানে না, লক্ষ্যপানে সে এগিয়ে যায়। যারা জীবনের কঠিন বাধাগুলোকে অতিক্রম করে লক্ষ্যে পৌঁছায়, তারাই সত্যিকারের লড়াকু। এই লড়াকুরা কখনো জীবনের কাছে হার মানে না। তারাই পারে স্বপ্ন পূরণ করতে।সময় খুবই সীমিত, কাজেই সেটা অপচয় করার কোনো মানে হয় না। স্বপ্নগুলোকে সত্যি করতে সহজ কিছু ধাপ অনুসরণ করে কাজ করতে হবে ।

বাস্তববাদী স্বপ্ন নির্ধারণ:

জীবনে সফল হতে হলে স্বপ্ন নির্ধারণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এই স্বপ্ন নির্ধারণ করতে হবে বাস্তবসম্মতভাবে। অনেক সময় আমরা আমাদের বর্তমান পরিস্থিতির বাইরে অনেক বেশি স্বপ্ন দেখি। এই স্বপ্নগুলো অর্জন করা আমাদের জন্য অসম্ভব। ফলে আমরা এই স্বপ্নগুলোকে পরিত্যাগ করে দিই। এই স্বপ্নের অপমৃত্য ঘটে।

স্বপ্ন অর্জনের উপযুক্ত পরিকল্পনা ও কৌশল নির্ধারণ:

বাস্তববাদী স্বপ্ন নির্ধারণ করার পর সেই স্বপ্ন অর্জনের জন্য একটি কৌশল নির্ধারণ করতে হবে। এই কৌশলটি এমন হতে হবে যা স্বপ্ন অর্জনের পথে সহায়ক হবে। এই কৌশলটি বাস্তবায়নের জন্য ধৈর্য ও নিরালস পরিশ্রম অপরিহার্য।

ধাপে ধাপে এগিয়ে যাওয়া:

স্বপ্ন অর্জনের জন্য ধাপে ধাপে এগিয়ে যাওয়া জরুরি। একবারে অনেক কিছু অর্জন করার চেষ্টা করলে তা কখনো সম্ভব হয় না। তাই স্বপ্নকে ছোট ছোট লক্ষ্যে ভাগ করে নিতে হবে। এই লক্ষ্যগুলো অর্জনের জন্য একটি নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করতে হবে। এই সময়সীমার মধ্যে এই লক্ষ্যগুলো অর্জনের জন্য কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ধাপে ধাপে এগিয়ে যেতে হবে।

আত্মবিশ্বাস ধরে রাখা:

আত্মবিশ্বাস অভিজ্ঞান এবং সহানুভূতি উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে। নিজেকে পজিটিভ ভাবে দেখতে হলে আত্মবিশ্বাস ধরে রাখাটা গুরুত্বপূর্ণ।

ইতিবাচক চিন্তা:

স্বপ্ন পূরণে সবসময় ইতিবাচক চিন্তা থাকা উচিত। যদি ভালো চিন্তা করি তাহলে ভালোই হবে। এর পেছনের কারণ হলো যেভাবে চিন্তা করা হয় কাজের উপর তার প্রভাব ফেলে এবং এর সাফল্য ও ব্যর্থতা নিশ্চিত হয়। উভয় দিক ভালোভাবে বুঝে সিদ্ধান্ত নিতে হবে এবং গৃহীত সিদ্ধান্তের প্রতি ইতিবাচক মনোভাব অবলম্বন করে সাফল্যের আশাও রাখতে হবে, যাতে সাফল্যের কাছাকাছি যেতে পারা যায়।

স্বপ্ন বাস্তবানের পরিবর্তনশীল কৌশল:

স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথে বারবার ব্যর্থতার সম্মুখীন হলে পথটি ভুল কিনা তা বিবেচনা করতে হবে অর্থাৎ যে কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে সেগুলো কি ভুল এবং সে কারণেই স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে না। অতএব, এটি গুরুত্বপূর্ণ যে সময় সাপেক্ষে কৌশলটি পরীক্ষা করা প্রয়োজন। এতে পরিবর্তন আনা অর্থা্ৎ কৌশল এ ব্যর্থ হলে কৌশল বি পথ অবলম্বন করা।

ধৈর্য্য ধারন করা:

স্বপ্ন বাস্তবায়নের সময় প্রথম প্রচেষ্টায় সফল্য পায়ে চুম্বন করবে এমন তো নয়, ব্যর্থতা আসতে পারে। অতএব, এটি গুরুত্বপূর্ণ যে উভয় পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে এবং ধৈর্যের সাথে কৌশল তৈরি করে সেই অনুযায়ী এগিয়ে যেতে হবে। এভাবে নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে গেলে অবশ্যই সফলতা হাতে এসে ধরা দেবে। একটি ব্যর্থতার কারণে হতাশ হয়ে কখনই সফল হওয়া যাবে না। অতএব, ধৈর্য ধরে এগিয়ে যাওয়া প্রয়োজন।

ভুল থেকে শেখা:

স্বপ্ন বাস্তবায়নের যেকোনো পদক্ষেপই যেকোনো সময় ভুল হতে পারে এবং স্বপ্নের দিকে এগিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে এক পা বা কয়েক পা পিছিয়ে যেতে হতে পারে, তার মানে মোটেও এটা নয় যে হার মানতে হবে। এখানে দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করতে হবে। এই ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে এবং হতাশ না হয়ে স্বপ্নের পথে এগিয়ে যেতে হবে। একটি ছোট ব্যর্থতা পিছিয়ে যাওয়ার অজুহাত হিসাবে ব্যবহার করা কখনো উচিৎ না।

অন্যের সাফল্য থেকে অনুপ্রেরণা নেওয়া:

যখন কারো সাফল্য সম্পর্কে জানা যায়, তখন তার কাছ থেকে অনুপ্রেরণা নেওয়া এবং কীভাবে সাফল্য অর্জন করা যায় সেটা জানার চেষ্টা করা।একজন সফল ব্যক্তির নেতিবাচক বিষয়গুলোর দিকে না তাকিয়ে তার ইতিবাচক বিষয়গুলো থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা। কীভাবে সেই ব্যক্তি তার স্বপ্নগুলোকে বাস্তবায়িত করেছে তার খুটিনাটি বিশ্লেষণ করা।

কিছু উদাহরণ দেখা যায়, যারা প্রথম প্রচেষ্টায় সফলতা না পেলেও সাহস হারায়নি এবং নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়েছে। ফলে সাফলতা তার হাতে ধরা দিয়েছে। তাদের মধ্যে একজন হলেন ড. গৌরাঙ্গ চন্দ্র দেবনাথ, একজন সত্যিকারের লড়াকু। তিনি এইচএসসি পরীক্ষায় পরপর দুইবার ফেল করেন। কিন্তু তিনি থেমে থাকেননি। তিনি আবার চেষ্টা করেন এবং তৃতীয়বার ১৯৯৯ সালে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড এ প্রথম স্থান অধিকার করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন। বর্তমানে তিনি ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত।

ভয়কে জয় করা:

স্বপ্নকে বাস্তবে রূপান্তরিত করার জন্য, যখন লক্ষ্য অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হয়, প্রথমে ভয় অনুভুত হয় যে গৃহীত পদক্ষেপসমূহের মাধ্যমে সফল হবো তো! স্বপ্ন ভেঙ্গে যেতে পারে এই ভয়ে স্বপ্ন দেখা বন্ধ না করে,  ভয় পাওয়া বন্ধ করে স্বপ্ন পূরণের দিকে দ্রুত এগিয়ে যাওয়া তাহলে ভয়ও ধীরে ধীরে কমবে এবং ভয়কে করতে পারব জয়।

সিদ্ধান্তের  উপর বিশ্বাস রাখা:

স্বপ্ন পূরণে গৃহিত পদক্ষেপের উপর দৃঢ় সংকল্প এবং আত্মবিশ্বাস স্থাপন করা যাতে সফলতা পাওয়া যায়। অনেক সময় শুরুতেই অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয় এবং প্রাথমিক ব্যর্থতার সম্মুখীন হতে হয়, তবে এই সময়ে দৃঢ় সংকল্প মনে রাখা এবং এতে বিশ্বাস বজায় রাখা অবশ্যই সাফল্য এনে দেবে। এর জন্য মৌলিক মন্ত্রটি মনে রাখতে হবে- “সংকল্প + বিশ্বাস = সাফল্য”

ঝুঁকি নেওয়া সাহস:

জীবনে সফল হতে হলে স্বপ্ন পূরণ করতে হয়। কিন্তু স্বপ্ন পূরণের জন্য অনেক কষ্ট এবং ঝুঁকি নিতে হয়। ঝুঁকি ছাড়া কোনো কিছুই অর্জন করা সম্ভব নয়। তাই স্বপ্ন পূরণের জন্য ঝুঁকি নেওয়া সাহসী কাজগুলোর মধ্যে অন্যতম।

যারা স্বপ্ন পূরণের জন্য ঝুঁকি নেয়, তারাই সফল হয়। কারণ তারা কখনো থেমে থাকে না। মার্ক জুকারবার্গ একজন সফল ব্যবসায়ী। তিনি ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি তার স্বপ্ন পূরণের জন্য ঝুঁকি নিয়েছিলেন। তিনি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাদ পড়েন এবং ফেসবুক প্রতিষ্ঠা করেন। আজ তিনি বিশ্বের একজন সফল ব্যক্তি।

সময়ের সঠিক ব্যবহার:

সময় হল জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ। সময় নষ্ট হলে তা আর ফিরে পাওয়া যায় না। তাই স্বপ্ন পূরণের জন্য সময়ের সঠিক ব্যবহার করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সময়ের সঠিক ব্যবহারের উপায়:

  • স্বপ্ন নির্ধারণ করা এবং সেই স্বপ্ন অর্জনের জন্য একটি পরিকল্পনা তৈরি করা।
  • সময়কে ছোট ছোট লক্ষ্যে ভাগ করে নেওয়া।
  • প্রতিটি লক্ষ্য অর্জনের জন্য একটি নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করা।

সময়ের সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে স্বপ্ন পূরণের পথে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব।

সুতরাং, যখনই কোনো স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে মন চায় এবং সাফল্য ছুতে ইচ্ছে করে, তখন আপনার উপরোক্ত বিষয়গুলিকে গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করতে হবে। স্বপ্ন পূরণের পথে অবিচল থাকতে যেমন ইচ্ছাশক্তির প্রয়োজন ঠিক তেমনি যথাপোযুক্ত কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হওয়া জরুরি।

60 thoughts on “স্বপ্ন পূরণের লড়াইয়ে অবিচল থাকার উপায়”

  1. সফলতা পেতে হলে ইচ্ছাশক্তি পরিশ্রমী ও সঠিক কর্মপরিকল্পনা থাকা জরুরি। লড়াকু তারাই যারা সহস্র বিপদ-আপদ বালা-মুসিবত ডিঙ্গীয়ে জীবনের কাছে হার মানে না, লক্ষ্যপানে সে এগিয়ে যায়।

    স্বপ্ন পূরণের পথে অবিচল থাকতে যেমন ইচ্ছাশক্তির প্রয়োজন ঠিক তেমনি যথাপোযুক্ত কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হওয়া জরুরি।
    লেখাটি পড়ে সত্যিই অনেক উৎসাহিত হলাম।

    Reply
  2. ইচ্ছাশক্তি আর কর্মপরিকল্পনা মাধ্যমে মানুষ তার যথাযথ সফলতার লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে।
    লেখক এখানে চমৎকার বিষয় তুলে ধরেছেন।

    Reply
    • স্বপ্ন পূরনের লড়াইয়ে অবিচল থাকতে হলে আমাদের প্রথমে স্বপ্ন এবং পরিকল্পনা ও কৌশল নির্ধারণ করতে হবে। এছাড়া ধৈর্যধারন করা,ভুল থেকে শেখা , জীবনে ঝুঁকি নেওয়ার সাহস থাকতে হবে। সময়ের সঠিক ব্যবহার,অন্যের সাফল্য দেখে অনুপ্রেরণা নেয়া,ভয়কে জয় করা, সিদ্ধান্তের উপর অবিচল থাকতে হবে,যা এই আর্টিকেলে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

      Reply
  3. আসসালামুয়ালাইকুম ও রহমতুল্লাহ

    উক্ত কন্টেন্ট টি স্বপ্ন অর্জনের উপযুক্ত পরিকল্পনা ও কৌশল সম্পর্কে ধারণা দেয়। স্বপ্ন বাস্তবানের জন্য আত্মবিশ্বাস,ইতিবাচক চিন্তা, ভুল থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা, অন্য ব্যক্তি সাফল্য অর্জনের তার থেকে ধারনা নেয়ার মাধ্যমে মানুষ তার স্বপ্ন থেকে লক্ষ্য অর্জনে সক্ষম হয়। যারা জীবনে স্বপ্ন পূরন হচ্ছে না বলে হতাশ তাদের জন্য এই কন্টেন্ট টি উপকারী হবে ইংশাআল্লাহ।

    Reply
  4. যেকোনো স্বপ্ন হোক তাকে সফলতার রূপ দিতে কঠিন পরিশ্রম ও ইচ্ছাশক্তির প্রয়োজন। ঘুমিয়ে স্বপ্ন দেখলেই কি তা বাস্তবে পরিণত হবে?মোটেই না,তাকে বাস্তবে পরিণত করতে হবে তার জন্য সঠিক পরিকল্পনা ও পরিশ্রম করতে হবে হতাশ হয়ে পরলে হবে না।লেখক খুবই সুন্দর ভাবে বিষয় গুলো বুঝিয়ে দিয়েছেন তার লেখার মাধ্যমে। যারা হতাশায় নিমজ্জিত যারা কিভাবে শুরু করবেন ভাবছেন তাদের জন্য এই কনটেন্টটি খুব উপকারে আসবে আশা করি।

    Reply
  5. স্বপ্ন পূরণ করতে গেলে অনেক বাধা বিপত্তি আসবে।কিন্তু সফলতার সূর্য পেতে হলে এসব বাঁধা কে অতিক্রম করতে হবে।সকল হতাশা কাটিয়ে ধৈর্য্য, সাহসিকতা,পরিশ্রম ও ইচ্ছে শক্তি দিয়ে সফলতার দিকে এগিয়ে যেতে হবে। এই কন্টেন্টটির মাধ্যমে একজন হতাশাগ্রস্ত ব্যক্তি সহজেই হতাশা মুক্ত হতে পারবে এবং নিজেকে সাফল্যের পথে অগ্রসর করতে পারবে।

    Reply
  6. আমরা জীবনের বিভিন্ন সনয়ে অনেক স্বপ্ন দেখি। কিন্তু সবসময় তা সাফল্য পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে না।বেশিরভাগ সময় আমরা নিজেই ভয় পেয়ে পিছিয়ে যাই।
    এই কনটেন্টে লেখক এটাই সুন্দর করে বুঝিয়েছেন যে,স্বপ্ন দেখে বসে থাকলে চলবে না। সেই স্বপ্নকে লক্ষ্য নির্ধারণ করে তা পূরণের জন্য লড়াই করে যেতে হবে।
    আলহামদুলিল্লাহ কনটেন্টটি পড়ে খুব উপকৃত হলাম।

    Reply
  7. স্বপ্ন হতে হবে বাস্তবসম্মত, এবং এটাকে বড় করে দেখলে এক সময়ে স্বপ্নিল দেখতে দেখতেই সময় চলে যাবে এবং স্বপ্ন দেখতে এক সময় বিরক্ত লাগবে। তাই স্বপ্নকে ছোট করে ভাগ করে দেখতে হবে। এবং স্বপ্ন নির্ধারণ ও সফলতা খুবই দরকার। এবং সেটার জন্য সময়কে যথাযথ মূল্যায়ন করতে হবে।

    Reply
  8. স্বপ্ন অর্জনের জন্য ধাপে ধাপে এগিয়ে যাওয়া জরুরি। তাই স্বপ্নকে ছোট ছোট লক্ষ্যে ভাগ করে নিতে হবে। কন্টেন্টের এই জাতীয় কথাগুলো আমাকে অনুপ্রাণিত করেছে। লক্ষ্য অর্জনে যারা বার বার ব্যর্থ হচ্ছেন তাদের জন্য কন্টেন্টটি খুবই উপকারে আসবে বলে আমি মনে করি।

    Reply
  9. স্বপ্ন দেখে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না কারণ এই স্বপ্নই আমাদের প্রাণবন্তভাবে বেঁচে থাকতে সাহায্য করে। মানুষ সবসময়ই তার স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে চায় মাঝে মধ্যে কিছু স্বপ্ন সত্যি হয় তবে কিছু স্বপ্ন থাকে যা স্বপ্ন ই থেকে যায়। ব্যর্থতা মেনে নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে জীবন যুদ্ধে এবং আবার যেন ব্যর্থ না হওয়া লাগে সেদিকেও সচেতন থাকতে হবে। আরে পরিকল্পনাকে বাস্তবায়নের জন্য এই কনটেন্ট টি বিশাল ভূমিকা পালন করতে পারে। এখানে লেখক খুব সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন কীভাবে ধাপে ধাপে নিজের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করা যায়। এটা মানুষের স্বপ্ন পূরণ বিশেষ দিকনির্দেশনা দিতে সক্ষম।
    তাই এটা একটা খুবই মানসম্মত কন্টেন্ট।

    Reply
  10. “সংকল্প + বিশ্বাস ” = সাফল্য। সফলতা আর ব্যর্থতার মাঝে মানুষের জীবন। স্বপ্ন হতে হবে বাস্তবমূখী।যেটা বিষয় নিয়ে স্বপ্ন বা বীজ বপনের পরিকল্পনা থাকবে, সেই বিষয়ে দৃঢ় পরিকল্পনা থাকতে হবে। ব্যর্থতার কারনে হতাশ হওয়া যাবে না।সফলতা পেতে হলে ধৈর্য্য ধরে এগিয়ে যেতে হবে। ভয়কে জয় করার মানসিক রাখতে হবে। স্বপ্নপূরনের জন্য সময়ের ব্যবহার অত্যন্তগুরুত্বপূর্ণ।
    তাই সঠিক সময়ে সঠিক পরিকল্পনা, পরিশ্রম আপনাকে পৌঁছে দিতে পারে সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে।

    Reply
  11. জীবনে আমাদের অনেক স্বপ্ন থাকে ,কিন্তু সঠিক পরিকল্পনার অভাবে সে সব স্বপ্ন বাস্তবে রূপ লাভ করে না।তাই স্বপ্ন হতে হবে বাস্তবসম্মত এবং সঠিক পরিকল্পনা অনুযায়ী সামনে এগিয়ে যেতে হবে ।তাহলেই জীবনে আসবে কাঙ্কিত সফলতা ।

    Reply
  12. স্বপ্ন ‍পূরণের জন্য দৃঢ় ইচ্ছাশক্তি, সঠিক কর্মপরিকল্পনা এব; তা বাস্তবায়নের জন্য কঠোর পরিশ্রম করা। ব্যর্থ হলে হাল ছেড়ে না দিয়ে ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে নতুন করে শুরু করা।কনটেন্টটিতে যথার্থই বলেছেন লেখক। কনটেন্টটি পড়ে উপকৃত হলাম।

    Reply
    • মানুষ মাত্রই স্বপ্নবাজ। কিন্তু স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে সবাই পারেনা। স্বপ্ন পূরণের পথে অবিচল থাকতে যেমন ইচ্ছাশক্তির প্রয়োজন ঠিক তেমনি যথাপোযুক্ত কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হওয়া জরুরি।
      এই কনটেন্টটি সবার জন্যই উপকারী তবে যারা বারবার স্বপ্ন পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে….. তারা এ কনটেন্টটি পড়লে কিছুটা হলেও উপকৃত হবে বলে আমার ধারণা।

      Reply
  13. প্রতিটি মানুষের জীবনে কিছু না কিছু স্বপ্ন থাকে। স্বপ্নহীন মানুষ ঠিকানা বিহীন চিঠির মতো। লেখক কে অসংখ্য ধন্যবাদ, স্বপ্নকে বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার জন্য।বিষয়গুলোকে গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করে আমাদেরকে স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে যেতে হবে।

    Reply
    • প্রত্যেক মানুষেরই কিছু স্বপ্ন থাকে, এবং সবাই চায় তার জীবনের স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করতে। কিন্তু সঠিক পরিকল্পনার অভাবে স্বপ্নগুলো আর বাস্তবায়ন হয়না। স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যায়। আর তখনই ব্যার্থতা এসে গ্রাস করে।
      ধন্যবাদ লেখককে, স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো কন্টেন্টটিতে উপস্থাপন করার জন্য।

      Reply
  14. জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে। এই স্বপ্নগুলো পূরণ করতে হলে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়। কখনো কখনো নিরন্তর চেষ্টার পরও স্বপ্ন পূরণ হয় না। জীবনে অনেক সময় ব্যর্থতা আসবে। ব্যর্থতায় হতাশ হয়ে পড়লে চলবে না। ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার চেষ্টা করতে হবে।স্বপ্ন পূরণের পথে অবিচল থাকতে যেমন ইচ্ছাশক্তির প্রয়োজন ঠিক তেমনি যথাপোযুক্ত কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হওয়া জরুরি।

    Reply
  15. মানুষেরজীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে। এই স্বপ্নপূরণ করতে হলে মানুষকে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়। স্বপ্নহীন মানুষ ঠিকানা বিহীন চিঠির মতো।স্বপ্ন ‍পূরণের জন্য দৃঢ় ইচ্ছাশক্তি থাকতে হবে।সেটা ঘুমিয়ে হক বা জেগে হক। লেখক কে অসংখ্য ধন্যবাদ।কনটেন্টটি পড়ে আমি উপকৃত হলাম।

    Reply
  16. প্রত্যেক মানুষের জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে।আর এই স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে মানুষকে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়।কখনও কখনও নিরন্তর চেষ্টার পরেও স্বপ্ন পূরণ হয় না।অনেক সময় জীবনে ব্যর্থতা এসে স্বপ্নকে গ্রাস করে ফেলে এবং মানুষ হতাশ হয়প পড়ে।কিন্তু ব্যর্থতায় হতাশ হয়ে পড়লে চলবে না।ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে ধৈর্য্য, সাহসিকতা,পরিশ্রম ও ইচ্ছে শক্তি দিয়ে সফলতার দিকে এগিয়ে যেতে হবে।সময়ের সঠিক ব্যবহার,অন্যের সাফল্য দেখে অনুপ্রেরণা নেয়া,ভয়কে জয় করা, সিদ্ধান্তের উপর অবিচল থাকতে হবে,তবেই জীবনে কাঙ্খিত সফলতা আসবে।এই কনটেন্টে লেখক এটাই সুন্দর করে বুঝিয়েছেন যে,বসে বসে স্বপ্ন দেখলে হবে না, স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে লক্ষ্য নির্ধারন করে তা পূরণের জন্য লড়াই করে যেতে হবে।

    Reply
  17. লেখকের লেখা থেকে বোঝা গেলো-“স্বপ্ন পূরনের জন্য ইচ্ছাশক্তি এবং যথোপযুক্ত কর্মপরিকল্পনাই হলো মূল মন্ত্র।”

    Reply
  18. স্বপ্ন পূরণ করার জন্য কর্মপরিকল্পনা ও চেষ্টা আবশ্যক। শুধু স্বপ্ন দেখলেই চলবে না স্বপ্ন পূরণ করতে গেলে কিছু ধাপ অনুসরণ করতে হবে। সেই ধাপগুলো এই কন্টেন্ট এ লেখক অনেক সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করেছেন।

    Reply
  19. স্বপ্ন পূরণের জন্য সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে কাজ বাস্তবায়নের চেষ্টা করলে স্বপ্ন পূরণ সম্ভব। লেখক তার লিখার মাধ্যম তা তুলে ধরেছেন তাই লেখক কে ধন্নবাদ।

    Reply
  20. স্বপ্ন পূরণের জন্য সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে কাজ বাস্তবায়নের চেষ্টা করলে স্বপ্ন পূরণ সম্ভব। লেখক তার লিখার মাধ্যম তা তুলে ধরেছেন তাই লেখক কে ধন্যবাদ।

    Reply
  21. এই কনটেন্টে লেখক এটাই সুন্দর করে বুঝিয়েছেন যে,স্বপ্ন দেখে বসে থাকলে চলবে না। সেই স্বপ্নকে লক্ষ্য নির্ধারণ করে তা পূরণের জন্য লড়াই করে যেতে হবে।
    আলহামদুলিল্লাহ কনটেন্টটি পড়ে খুব উপকৃত হলাম।

    Reply
  22. স্বপ্ন পূরনের প্রচন্ড ইচ্ছাশক্তি। সঠিক পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের জন্য কঠোর পরিশ্রম করা। ব্যর্থ হলে হাল ছেড়ে না দিয়ে ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে নতুন করে শুরু করা। লেখকের কনটেন্টটি পড়ে উপকৃত হলাম।

    Reply
  23. স্বপ্ন মানুষকে বাঁচার অনুপ্রেরণা যোগায়।
    আর এই স্বপ্ন পূরণ করতে গিয়ে অনেক সময় ব্যর্থতার সম্মুখীন হতে হয়। হাল ছেড়ে দিলে চলবে না। স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য এগোতে হবে সঠিক পরিকল্পনা নিয়ে। আরে এই কনটেন্টে লেখক সেই পরিকল্পনা গুলো সুন্দর ভাবে তুলে ধরেছেন। ধন্যবাদ জানাই লেখক কে।

    Reply
    • প্রতিটি মানুষই স্বপ্ন দেখতে পছন্দ করে।কিন্তু এই স্বপ্ন পূরণের পথে আসে নানারকম বাধা-বিপত্তি,ব্যর্থতা।তাই ব্যর্থতায় হতাশ না হয়ে ধৈর্য্য ধরতে হব।সঠিক পরিকল্পনা,প্রচন্ড ইচ্ছা শক্তি,একান্ততা ও কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে
      স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে হবে।এই কন্টেন্টটিতে লেখক চমৎকার ভাবে স্বপ্ন বাস্তবায়নের ধাপগুলো তুলে ধরেছেন, যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ আমাদের লক্ষ্য পূরণের জন্য।

      Reply
    • প্রত্যেকটি মানুষের জীবনের ছোট বড় স্বপ্ন থাকে। আর এই পূরণের ক্ষেত্রে জীবনে অনেক বাধা, সংগ্রাম, বিপর্যয় আসে। এসব সমস্যা পিছনে ফেলে সঠিক পরিকল্পনার, ধৈর্যধারণও উপযুক্ত কর্ম সম্পাদনের মাধ্যমে স্বপ্ন পূরণ করা সম্ভব। উক্ত কনটেন্ট এ এই বিষয়টি সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

      Reply
  24. লেখককে অনেক ধন্যবাদ এত সুন্দর করে সপ্ন পূরণের বিষয়টি বুঝিয়ে লিখার জন্য।স্বপ্ন অনেকেই দেখে, কিন্তু সেই স্বপ্নকে অনেকেই বাস্তবে রুপ দিতে পারে না।এই কন্টেন্টের মাধ্যমে অনেকেই স্ব স্ব স্বপ্নপূরণে উৎসাহী হয়ে উঠবে।স্বপ্ন পূরণ করতে অনেক কঠোর পথ পাড়ি দিতে হয়। কোন পরিস্থিতিতেই হাল ছেড়ে দিলে চলবে না।

    Reply
  25. প্রতিটি মানুষই নির্দিষ্ট স্বপ্ন দেখে। তবে সেই স্বপ্ন পূরণের ক্ষেত্রে সবাই সাফল্য পায় না। সঠিক পরিকল্পনা, সময়ের সদ্ব্যবহার, আত্মবিশ্বাস, ইতিবাচক চিন্তা, ধৈর্য ধারণ, কৌশল নির্ধারণ ইত্যাদি গুনকে ব্যবহারের মাধ্যমেই একমাত্র স্বপ্নকে সফল করা সম্ভব হয়। এই কনটেন্টে স্বপ্ন সফল করার জন্য যেসব বাস্তব পদক্ষেপ নেওয়া যায় সে সম্পর্কে সুন্দর একটা দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

    Reply
  26. সময়ের সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে স্বপ্ন পূরণের পথে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব। উক্তিটি সত্যি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সময়কে সঠিক ভাবে ব্যবহার করতে হবে। সময় খুবই সীমিত, কাজেই সেটা অপচয় করার কোনো মানে হয় না। লক্ষ্যে পৌঁছাতে হলে অবশ্যই সময়কে কাজে লাগাতে হবে। লেখক এর লেখাটি খুব চমৎকার ছিল এবং এটি পড়ে অনেক উপকৃত হলাম।

    Reply
  27. স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে কী কী কৌশল ও পদক্ষেপ অনুসরণ করতে হবে তা এই আর্টিকেলটিতে আলোচনা করা হয়েছে।যা পড়ে পাঠক খুবই উপকৃত হবে।

    Reply
  28. প্রত্যেক মানুষের নিজস্ব কিছু স্বপ্ন থাকে। সপ্ন পূরণে বাধা আসবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু মাঝে মাঝে মানুষ আশা হারিয়ে ফেলে। এ আর্টিকেলটি আমাদের সপ্নের পথে অবিচল থাকতে এবং নিজের লক্ষ্যে পৌঁছাতে সহযোগিতা করবে। ধাপগুলো গাইডলাইন হিসেবে কাজ করবে।

    Reply
  29. স্বপ্ন নেই এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। স্বপ্ন দেখার সাথে স্বপ্ন বাস্তবায়নে থাকতে হবে যথাযথ কর্মপরিকল্পনা, তার বাস্তবায়ন ও সময়ের উপযুক্ত ব্যাবহার। এই নিবন্ধ থেকে আমরা এই শিক্ষা নিতে পারি।

    Reply
  30. সত্যিকারের লড়াকু তারাই যারা সহস্র বিপদ-আপদ বালা-মুসিবত ডিঙ্গীয়ে জীবনের কাছে হার না মেনে লক্ষ্যপানে এগিয়ে যায়।

    আলহামদুলিল্লাহ, কনটেন্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
    স্বপ্ন বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা, আশা করছি স্বপ্নদেখা সব লড়াকু সৈনিকেরা কনটেন্টটি থেকে উপকৃত হবে।

    Reply
  31. স্বপ্ন অনেকেই দেখে, কিন্তু সেই স্বপ্নকে অনেকেই বাস্তবে রুপ দিতে পারে না। এই স্বপ্নপূরণ করতে হলে মানুষকে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়। স্বপ্নহীন মানুষ ঠিকানা বিহীন চিঠির মতো।স্বপ্ন ‍পূরণের জন্য দৃঢ় ইচ্ছাশক্তি থাকতে হবে।সেটা ঘুমিয়ে হক বা জেগে হক। লেখক কে অসংখ্য ধন্যবাদ।

    Reply
  32. স্বপ্ন মানুষের জীবনে প্রেরণা জোগায় সাফল্যের দিকে এগিয়ে যেতে। এই স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্য মানুষকে কত বাধা- বিপত্তি অতিক্রম করতে হয়।এই স্বপ্নকে বাস্তবে রুপ দিতে হলে সহজ কিছু ধাপ অনুসরণ করে কাজ করতে হবে।লেখক এখানে সুন্দরভাবে বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন কিভাবে যথাপোযুক্ত কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে।ধন্যবাদ লেখককে

    Reply
  33. সবার জীবনে সপ্ন থাকে যা সে পূরণ করতে চায়।আর সেই সপ্ন পূরনের পথে অনেক বাধা আসে।উক্ত কন্টেন্ট থেকে আমরা শিখতে পেরেছি কিভাবে সঠিক পরিকল্পনা করে বিভিন্ন বাধা পেরিয়ে আমরা সফল হতে পারি।যা আমাদের সপ্ন পূরনের পথকে সহজ্ করে দিবে।

    Reply
  34. জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে। এই স্বপ্নগুলো পূরণ করতে হলে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়। কখনো কখনো নিরন্তর চেষ্টার পরও স্বপ্ন পূরণ হয় না। জীবনে অনেক সময় ব্যর্থতা আসবে। ব্যর্থতায় হতাশ হয়ে পড়লে চলবে না। ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার চেষ্টা করতে হবে। চেষ্টা না করলে আমরা জীবন সংগ্রামে পিছিয়ে যাবো,সেজন্যে সপ্ন সত্যি হবার আগ পর্যন্ত আমাদের চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।কনটেন্টটিতে বাস্তব জীবনের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে যা খুবই শিক্ষনীয় ।

    Reply
  35. জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে,স্বপ্নগুলো পূরন করতে অনেক পরিশ্রমে রত থাকতে হয়, লেগে থাকতে হয়,এরপরেও অনেক প্রচেষ্টার পরেও স্বপ্নগুলো পূরন হয়না,জীবনের এসকল ব্যার্থতায় মনঃক্ষুণ্ণ হওয়া যাবে না,হতাশ হওয়া যাবে না,ব্যার্থতার শিক্ষা নিয়ে দ্বিগুন প্রচেষ্টা বাড়িয়ে দিতে হবে।সঠিক সময়ের পরিশ্রম ঠিক একদিন সফলতা আসবে এজন্য সকল ঝুঁকি মোকাবেলা করে সম্মুখে নিরন্তর ছুটে চলা।সর্বপরি সময়ের ভাগ করে নিতে হবে সহ প্রবল ইচ্ছা শক্তি প্রয়োজন এবং কর্মপরিকল্পনা করে কাজ করা।কন্টেন্টটি বাস্তব সুন্দর বিষয় তুলে ধরার জন্য লেখককে ধন্যবাদ জানাই আসলে এমন ভাবে চিন্তা করলে জীবনে হয়তো অনেক বড় সফলতা বয়ে আসতো।

    Reply
  36. হুম, শুধু স্বপ্ন দেখলেই হবেনা, তা পূরণের জন্য চেষ্টাও চালিয়ে যেতে হবে, পরিকল্পনা অনুযায়ী আগাতেও হবে।

    Reply
  37. যেকোনো স্বপ্ন পূরনের জন্যই প্রয়োজন প্রবল ইচ্ছাশক্তি এবং কঠিন পরিশ্রম। স্বপ্নপূরনের পথে অনেক বাধা- প্রতিবন্ধকতা আসবে।এমন পরিস্থিতিতে কেবল হতাশ হলে চলবেনা।সঠিক পরিকল্পনা ও কৌশল নির্ধারণ করে দৃঢ়তার সাথে এগিয়ে যেতে হবে।

    Reply
  38. প্রত্যেকের জীবনে কিছু স্বপ্ন থাকে। সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা, কঠোর পরিশ্রম এবং সময়ের সঠিক ব্যবহার। যে ব্যক্তি এই তিনটি কাজ যথাযথ ভাবে পালন করতে সক্ষম হবে তার স্বপ্ন অবশ্যই পূরণ হবে। উক্ত কন্টেন্ট থেকে আমরা শিখতে পেরেছি কিভাবে সঠিক পরিকল্পনা করে বিভিন্ন বাধা পেরিয়ে আমরা সফল হতে পারি।যা আমাদের সপ্ন পূরনের পথকে সহজ্ করে দিবে।

    Reply
  39. জীবনের স্বপ্নগুলোকে পূরণ করতে হলে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়। কখনো কখনো নিরন্তর চেষ্টার পরও স্বপ্ন পূরণ হয় না। জীবনে শত ব্যর্থতায় হতাশ হয়ে পড়লে চলবে না। ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার চেষ্টা করতে হবে। সত্যিকারের লড়াকুরা সহস্র বাধা পেরিয়ে তার লক্ষ্যপানে সে এগিয়ে যায়। হাজার ব্যর্থতার মাঝেও কিভাবে ধৈর্য ধারণ ও পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজের স্বপ্ন পূরনের জন্য সামনে এগিয়ে যাওয়া যায়,তা এই কন্টেন্টটিতে খুবই সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।।এটি সবার কাজে দিবে, ইন-শা-আল্লাহ।

    Reply
  40. স্বপ্নই মানুষকে বাঁচতে শেখায়। কিন্তু স্বপ্ন দেখাই শুধু যথেষ্ট নয়।তার বাস্তবায়নের জন্যও কাজ করে যেতে হয়।লক্ষ্যে অবিচল থেকে সুপরিকল্পিতভাবে এগিয়ে গেলে তবেই স্বপ্নের বাস্তবায়ন সম্ভব। এই লিখায় লেখক খুব সুন্দরভাবে স্বপ্ন বাস্তবায়নের ধাপগুলো ব্যাখ্যা করেছেন।

    Reply
  41. কথায় আছে “পরিশ্রম সফলতার চাবিকাঠি।” প্রত্যেকটা মানুষের জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে। আর নিরন্তর প্রচেষ্টার মাধ্যমেই এই স্বপ্নগুলো পূরণ করা যায়। অনেক সময় দেখা যায় স্বপ্ন পূরণের ক্ষেত্রে ব্যর্থতা বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এই ব্যর্থতাকে ব্যর্থতা মনে না করে এ ব্যর্থতা থেকে অনেক কিছু শিখে সামনে আরো কঠিন ভাবে এগিয়ে যাওয়ার নামই হচ্ছে সফলতা।

    উপরোক্ত কন্টেন্টের মাধ্যমে আমরা আরো বিস্তারিত জানতে পারি।নিজের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে কিভাবে ব্যর্থতাকে সফলতায় রূপান্তর করা যায় তা উপরোক্ত কনটেন্টে সুন্দরভাবে আলোচনা করা হয়েছে। এ কনটেন্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ সকলের জন্য।

    Reply
  42. কথায় আছে “পরিশ্রম সফলতার চাবিকাঠি।” প্রত্যেকটা মানুষের জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে। আর নিরন্তর প্রচেষ্টার মাধ্যমেই এই স্বপ্নগুলো পূরণ করা যায়। অনেক সময় দেখা যায় স্বপ্ন পূরণের ক্ষেত্রে ব্যর্থতা বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এই ব্যর্থতাকে ব্যর্থতা মনে না করে এ ব্যর্থতা থেকে অনেক কিছু শিখে সামনে আরো কঠিন ভাবে এগিয়ে যাওয়ার নামই হচ্ছে সফলতা।

    উপরোক্ত কন্টেন্টের মাধ্যমে আমরা আরো বিস্তারিত জানতে পারি।নিজের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে কিভাবে ব্যর্থতাকে সফলতায় রূপান্তর করা যায় তা উপরোক্ত কনটেন্টে সুন্দরভাবে আলোচনা করা হয়েছে। এ কনটেন্ট টি আমাদের সকলের জন্য শিক্ষনীয়।

    Reply
  43. স্বপ্ন পূরণের পথে অবিচল থাকতে ইচ্ছাশক্তির পাশাপাশি চেষ্টার প্রয়োজন ঠিক তেমনি যথাপোযুক্ত কর্মপরিকল্পনাও প্রয়োজন। কন্টেন্টটি পরে অনেক অনুপ্রেরণা পেলাম।

    Reply
  44. স্বপ্ন পূরণ এর জন্য আমাদের সকলেরই উচিত লড়াই করে যাওয়া ও হাল ছেড়ে না দেওয়া। উপরোক্ত কন্টেন্টটি পড়ে আমি খুবই অনুপ্রাণিত হয়েছি।

    Reply
  45. এই কনটেন্টে অনেক চমৎকারভাবে মানুষ কিভাবে অতি বাধা পেরিয়ে তার লক্ষ্যের দিকে অগ্রসর হবে আর নিজের সপ্ন পূরেণর পথে লেগে থাকবে তা আলোচনা করা হয়েছে। এটি অনেককেই অনুপ্রানিত করতে সাহায্য করবে, বিশেষ করে যারা হতাশায় ভুগছে তারা উপরের লিখাটা পড়লে উপকৃত হবে ইনশাআল্লাহ্।

    Reply
  46. জীবনে স্বপ্ন দেখা অত্যন্ত স্বাভাবিক, এবং বিভিন্ন স্তরে আমরা বিভিন্ন স্বপ্ন দেখি। কিন্তু বাস্তবতা হলো, সব স্বপ্নই বাস্তবায়িত হয় না। অনেক সময় আমরা নিজেদের ভয়ের কাছে হার মানি, সাহস হারিয়ে পিছিয়ে যাই।

    এই কনটেন্টটি লেখক সুন্দরভাবে বুঝিয়েছেন যে, স্বপ্ন দেখে বসে থাকলেই চলবে না। স্বপ্নকে লক্ষ্য হিসেবে ধারণ করে, তা পূরণের জন্য লড়াই করে যেতে হবে। লেখকের বার্তা স্পষ্ট: সাহসী হও, তোমার স্বপ্নের পেছনে ছুটে চলো, বাধা-বিপত্তি এড়িয়ে তোমার লক্ষ্য স্পর্শ করো।
    কন্টেন্টটি পড়ে আমি খুবই অনুপ্রাণিত হয়েছি।

    Reply
  47. এটা ঠিক যে, জীবনে অনেক স্বপ্ন থাকে, আর সেই স্বপ্নগুলো পূরণ করতে হলে অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়। কিন্তু কষ্ট সহ্য করার মানে হলো হাল ছেড়ে দেওয়া নয়। বরং, কষ্টকেই অনুপ্রেরণা হিসেবে গ্রহণ করে আরও দৃঢ়ভাবে লড়াই করে যেতে হবে।
    সফলতার পথ কখনোই মসৃণ হয় না। পথে অনেক বাধা-বিপত্তি, অনেক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হবে। কিন্তু যারা হাল ছাড়ে না, যারা লড়াই করে যায়, তারাই শেষ পর্যন্ত জয়ী হয়।
    লেখাটি পড়ে সত্যিই অনেক উৎসাহিত হলাম।

    Reply
  48. কনটেন্টটি পড়ে আমরা বুঝতে পারলাম যে জীবনের লক্ষ্য পূরণের জন্য স্বপ্ন দেখতে হবে। স্বপ্ন পূরণের জন্য পরিকল্পনা ও কৌশল ঠিক করতে হবে। স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার জন্য সময়ের সঠিক ব্যবহার, আত্মবিশ্বাস, ইতিবাচক চিন্তা ও ধৈর্য্য ধারণ করতে হবে এবং সাথে সাথে নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে গেলে অবশ্যই সফলতা আসবে।
    লেখককে ধন্যবাদ বিষয়টি এত সুন্দরভাবে তুলে ধরার জন্য।

    Reply
  49. জীবনে অনেক সময় ব্যর্থতা আসবে। ব্যর্থতায় হতাশ হয়ে পড়লে চলবে না। ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার চেষ্টা করতে হবে। কখনো জীবনের কাছে হার মানে না। তারাই পারে স্বপ্ন পূরণ করতে।সময় খুবই সীমিত, কাজেই সেটা অপচয় করার কোনো মানে হয় না।

    Reply
  50. জীবনে চলার পথে বিপদ বা বাঁধা আসবেই ।আর সেই বাঁধা পেরিয়ে সামনে এগিয়ে গেলেই স্বপ্ন পূর্ণ হবে।

    কনটেন্টটি অসাধারন।

    Reply
  51. স্বপ্ন পূরনের জন্য কিছু কাজ বা পদক্ষেপ গ্রহণ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।জীবনে স্বপ্ন পূরণের জন্য আত্নবিশ্বাস ধরে রাখতে হবে,ধাপে ধাপে এগিয়ে যেতে হবে। সর্বপরি কন্টেনটি স্বপ্ন পূরণের সফলতা অর্জনের দিক নির্দেশনা স্বরুপ।

    Reply
  52. স্বপ্ন আছে বলেই মানুষ বাঁচার আশা দেখে। স্বপ্ন মানুষকে সামনে চলার শক্তি দেখায়।
    স্বপ্ন পূরণের পথে অবিচল থাকতে যেমন ইচ্ছাশক্তির প্রয়োজন ঠিক তেমনি যথাপোযুক্ত কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হওয়া জরুরি।
    তাহলেই স্বপ্ন কে ছোঁয়া সম্ভব হবে।
    যার যথার্থ সুন্দর পরামর্শে ভরপুর এ কন্টেন্ট আমাদের স্বপ্ন কে বাস্তবায়ন করতে এক ধাপ এগিয়ে দিয়েছে।

    Reply
  53. সপ্ন সেটা নয় যা আমরা ঘুমিয়ে দেখি সপ্ন সেটাই যাআমরা জেগে দেখি। এবং তা বাস্তবায়নে সর্বাত্মক চেষ্টা করি। ধন্যবাদ লেখক কে সপ্ন পূরনে করনীয় গুলো এত সুন্দর করে তুলে ধরার জন্য।

    Reply
  54. হার না মেনে জীবনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। থামা চলবে না। এগিয়ে চলার নামই জীবন। যত বাঁধা বিপত্তি আসুক। ধন্যবাদ লেখককে বাস্তবতা দিয়ে স্বপ্নপূরণের উপায় দেখিয়ে দেওয়ার জন্য।

    Reply
  55. মানুষ মাত্রই স্বপ্নবাজ। কিন্তু স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে সবাই পারেনা। স্বপ্ন পূরনের লড়াইয়ে অবিচল থাকতে হলে আমাদের প্রথমে স্বপ্ন ও পরিকল্পনা এবং কৌশল নির্ধারণ করতে হবে। এছাড়াও ধৈর্যধারন করা, ভুল থেকে শেখা, জীবনে ঝুঁকি নেওয়ার সাহস থাকতে হবে। সময়ের সঠিক ব্যবহার, অন্যের সাফল্য দেখে অনুপ্রেরণা নেয়া, ভয়কে জয় করা, সিদ্ধান্তের উপর অবিচল থাকতে হবে। যা এই কন্টেন্ট এ বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। যারা জীবনে স্বপ্ন পূরন হচ্ছে না বলে হতাশ, তাদের জন্য এই কন্টেন্টটি উপকারী হবে বলে মনে করছি।

    Reply

Leave a Comment